অসাধারণ অপরাজিতা ফুল

“অপরাজিতা ফুল”

অসাধারণ ফুল।দেখতে খুবই সুন্দর।মনে হয় সকল সৌন্দর্য একত্রিত হয়েছে এই “অপরাজিতা ফুল” এরমধ্যে…
এদের রয়েছে বিভিন্ন রঙ!
নীল,বেগুনী,সাদা আরো হরেক রকম…
আর প্রজাতি রয়েছে ২ টা..
ডাবল পাপড়ি আর সিঙ্গেল পাপড়ি..
সিঙ্গেল পাপড়ি দেখতে সুন্দর হলেও তার চেয়ে দেখতে বেশি সুন্দর হচ্ছে ডাবল পাপড়িযুক্ত অপরাজিতা!
গাছটি দেখতে লতানো…
মাথা তুলে দাঁড়াবার মতো যেকোনো যায়গা পেলেই এরা বেয়ে চলে..
সিঙ্গেল পাপড়িযুক্ত অপরাজিতা দেখতে কিছুটা শংখের মতো..
আসলেই দেখতে অসাধারণ!
মন কেড়ে নেয় এদের রুপ!
কমবেশি সাড়া বছরই ফুটতে দেখা যায়…
একটু যত্ন পেলেই এরা প্রচুর ফুল নিয়ে হাজির হয়ে যায় দলেবলে..!
আজ এই অপরাজিতার যত্ন, লালন পালন ও বংশবৃদ্ধি সম্পর্কিত তথ্যাবলি তুলে ধরবো আপনাদের মাঝে…

মাটি:মাটি, শুকনা গুবর,জৈব সার,অল্প চুন মিশিয়ে রাখতে হবে কিছুদিনের জন্য!
তারপর উপযুক্ত সময়ে চারা রোপণ করতে হবে..

চারা করার পদ্ধতি: অপরাজিতার বীজ থেকে চারা হয়!ফুল ফুটার পর সেখানেই ফুল শুকিয়ে বীজ হয়!সেই বীজ শুকালে সংগ্রহ করতে হবে..
তারপর রোপণ করতে হবে..
বীজ লাগানোর পর অল্প পানি দিয়ে পলিথিন দিয়ে ঢেকে রেখে দিতে হবে..
(কেনো পলিথিন দিয়ে ঢেকে রাখতে হবে তা আমাদের আগের পোস্টে বিস্তারিত জানিয়েছি..
যাদের জানা নেই তারা আমাদের আগের পোস্ট গুলো লক্ষ্য করলেই দেখতে পাবেন!)
তারপর কিছুদিন ছায়ায় রাখলেই বীজ অঙ্কুরিত হতে দেখা যাবে..

বীজ থেকে চারা হওয়া দেখার মজাটাই অন্যরকম!
এক অদ্ভুত আনন্দ মিলে এতে..
আবার এই আনন্দ পরিপূর্ণতা পায় যখন সেই বীজ থেকে করা গাছে ফুল বা ফল হতে দেখা যায়..
একমাত্র প্রকৃত বাগানীরাই এই অনুভূতিটা বুঝতে পারে..

অপরাজিতার যত্ন: অপরাজিতার খুব বেশি যত্নের প্রয়োজন হয় না…
নিয়মিত সকাল বিকাল পানি দিতে হবে..
মাসে একবার অল্প পরিমান জৈব সার আর শুকনা গুবর দিতে হবে।আর কিছুদিন পর পর মাটি খুঁচিয়ে দিতে হবে..
এতে করে মাটি উর্বর থাকে,শক্ত হয় না!

আর অবশ্যই পর্যাপ্ত রোদ প্রয়োজন!!
রোদ ভালো পেলে ফুল বেশি ফুটে।

নিজে বাগান করুন,অন্যকেও অনুপ্রাণিত করুন..
এতে করেই সবার মাঝে ছড়িয়ে যাবে সবুজ!
ফুলে ফলে পরিপূর্ণ থাকবে আমাদের এই সোনার বাংলা..
Happy Gardening!

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *