1G, 2G, 3G, 4G  প্রথম চালু হয় কোন দেশে? | জানুন বিস্তারিত

G  নিয়ে অনেক শব্দ থাকলেও প্রযুক্তির ক্ষেত্রে আমরা G মানে Generation বা প্রজন্ম বুঝি।  প্রজন্ম মানে যুগের পরিবর্তনের সাথে সামঞ্জস্য রেখে মোবাইল প্রযুক্তির উন্নতি সাধনের মান নির্ধারনী ব্যাবস্থা!

 

1G :

মোবাইল যোগাযোগ প্রযুক্তিতে ১৯৭৯ সালের ১ লা ডিসেম্বর জাপানের NTT (Nippon Telegraph and Telephone) কতৃক ওয়ান জি,  অর্থাৎ প্রথম প্রজন্মের মোবাইল নেটওয়ার্ক স্থাপনের মাধ্যমে তারবিহীন যোগাযোগ প্রযুক্তির জেনারেশনের শুরু হয়! প্রথম প্রজন্মের মোবাইল নেটওয়ার্ক ছিলো এনালগ, যার সাহায্যে শুধুমাত্র কল করাই যেতো..

তেমন কোনো আধুনিকতা প্রথম জেনারেশনের নেটওয়ার্কে ছিলো না। বাংলাদেশে প্রথম প্রজন্মের নেটওয়ার্ক চালু হয় ১৯৯৩ সালে।

 

2G:

এরপর ১৯৯১ সালের ১ লা জুলাই ফিনল্যান্ডের রেডিওলিনজা নামকা GSM (Global System for Mobile Communication)  অপারেটর সর্বপ্রথম দ্বিতীয় প্রজন্মের নেটওয়ার্ক চালু করে।২য় প্রজন্মের নেটওয়ার্ক ছিলো কিছুটা আধুনিক। ২য় প্রজন্মের নেটওয়ার্কে টেক্সট-মেসেজ বা Short Message Service (SMS) এবং পিকচার-মেসেজ বা Multimedia Messages Service (MMS)  আদান প্রদান করা যেতো।

বাংলাদেশে দ্বিতীয় প্রজন্মের নেটওয়ার্ক চালু হয় ১৯৯৭ সালে।

3G:

আমাদের অনেকেই মনে করি প্রযুক্তির ক্ষেত্রে তৃতীয় Generation  আমাদের মধ্যে এনে দিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া!

কিন্তু তা সত্য নয়..

প্রযুক্তির ক্ষেত্রে আমাদের মাঝে তৃতীয় Generation  নিয়ে আসে জাপান!

২০০১ সালের ১ লা অক্টোবর জাপানের এনটিটি ডোকোমো (NTT DoCoMo) টেলিযোগাযোগ প্রতিষ্ঠান সর্বপ্রথম তৃতীয় প্রজন্মের মোবাইল প্রযুক্তি চালু করে! যখন আমাদের মধ্যে তৃতীয় জেনারেশন অর্থাৎ থ্রি জি চলে আসে তখন ভিডিও কলিং বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠে। আর আমাদের বাংলাদেশে থ্রিজি চালু হয় ২০১২ সালের ১৪ অক্টোবর।

4G:

২০০৬ সালের এপ্রিলের দিকে দক্ষিণ কোরিয়ার বৃহত্তম টেলিফোন কোম্পানি KT Corporation  প্রথম চতুর্থ প্রজন্মের নেটওয়ার্ক চালু করে। চতুর্থ প্রজন্মের নেটওয়ার্ক এর মাধ্যমে দ্রুতগতিতে অনলাইন গেমিং ও টিভি দেখা খুব জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। যদিও বলা হচ্ছে আমাদের দেশে ২০১৮ তেই ফোর জি চালু হয়ে গেছে..

তবে এর কার্যক্রম সাড়া দেশে পুরোপুরিভাবে চালু হতে আরো কিছু সময় লাগবে।

 

5G:

আবার দক্ষিণ কোরিয়ার স্যামসাং  এরই মাধ্যে ফাইভ জি বা পঞ্চম প্রজন্মের নেটওয়ার্ক প্রযুক্তি নিয়ে কাজ শুরু করে দিয়েছে। তবে এর পুরো সেবা চালু হবে ২০২০ সালে!

 

এমন আরো সব তথ্য পেতে আমাদের সাথেই থাকুন!

ধন্যবাদ!

Comments

comments